মুসলমানদের প্রধান ধর্মীয় উৎসব ঈদ। বছরে দু’টি ঈদ উদযাপন করে মুমিন মুসলমান। ঈদের নামাজ আদায় করা ওয়াজিব। ঈদের নামাজ বছরে দুবার পড়ার কারণে অনেকেই নামাজ পড়ার নিয়ম ভুলে যান। সে কারণেই মুমিন মুসলমানের জন্য ঈদের নামাজের নিয়ম জেনে নেয়া জরুরি।

ঈদের নামাজ উন্মুক্ত স্থানে আদায় করা সুন্নাত। রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম খোলা জায়গায় নামাজ আদায় করতেন। যদি উন্মুক্ত স্থানের ব্যবস্থা না থাকে তবে মসজিদেও ঈদের নামাজ পড়া যাবে।

 

বর্তমানে করোনা পরিস্থিতির কারণে অনেক দেশের মসজিদ কিংবা বাইরে বিশাল জামাআতে ঈদের নামাজ আদায়ে রয়েছে বিধি-নিষেধ। তাই মসজিদ ছাড়াও বাসা-বাড়িতেও ঈদের নামাজ আদায় করা যাবে। তবে শর্ত হলো তা জামাআতে আদায় করা এবং খুতবা দেয়া।

 

ঈদের নামাজ পড়ার নিয়ম

ঈদের নামাজ মসজিদে, খোলা জায়গায় কিংবা বাসা-বাড়িতে যেখানেই পড়া হোক না কেন, অবশ্যই তা জামাআতের সঙ্গে পড়তে হবে। জুমআ নামাজ অনুষ্ঠিত হওয়ার জন্য যে শর্ত প্রযোজ্য, ঈদের নামাজ আদায় করার জন্যও সে একই শর্ত প্রযোজ্য।

jagonews24

সুতরাং জামাআত ছাড়া ঈদের নামাজ আদায় করা যাবে না। বাসা-বাড়িতে ঈদের নামাজ আদায় করতে হলেও অবশ্যই জামাআতে ঈদের নামাজ আদায় করতে হবে। তাই ঈদের নামাজ আদায়ের জন্য ইমাম ছাড়া ন্যূনতম তিনজন মুসল্লি হতে হবে।

ঈদের নামাজ

ঈদের নামাজের জন্য কোনো আজান ও ইকামত নেই। তবে জুমআর নামাজের মতোই উচ্চ আওয়াজে কুরআন তেলাওয়াতের মাধ্যমে ঈদের নামাজ আদায় করতে হয়।

ঈদের নামাজের পার্থক্য

তবে ঈদের নামাজের জন্য পার্থক্য হলো অতিরিক্ত ৬টি তাকবির দিতে হবে। প্রথম রাকাআতে ‘আল্লাহু আকবার’ বলে হাত বেঁধে অতিরিক্ত তিন তাকবির দিয়ে সুরা ফাতিহা পড়া। দ্বিতীয় রাকাআতে সুরা মিলানোর পর অতিরিক্ত তিন তাকবির দিয়ে রুকতে যাওয়া।

 

ঈদের নামাজের নিয়ত

ঈদের দুই রাকাআত ওয়াজিব নামাজ অতিরিক্ত ৬ তাকবিরের সঙ্গে এই ইমামের পেছনে কেবলামুখী হয়ে আল্লাহর জন্য আদায় করছি… আল্লাহু আকবার।

 

ঈদের নামাজের প্রথম রাকাআত

– তাকবিরে তাহরিমা : ঈদের নামাজে নিয়ত করে তাকবিরে তাহরিমা ‘আল্লাহু আকবার’ বলে হাত বাঁধা।
– ছানা পড়া : ‘সুবহানাকা আল্লাহুম্মা ওয়া বিহামদিকা ওয়া তাবারাকাসমুকা ওয়াতাআলা যাদ্দুকা ওয়া লা ইলাহা গাইরুকা।
– অতিরক্তি ৩ তাকবির দেয়া। এক তাকবির থেকে আরেক তাকবিরের মধ্যে তিন তাসবিহ পরিমাণ সময় বিরত থাকা। প্রথম ও দ্বিতীয় তাকবিরে উভয় হাত উঠিয়ে তা ছেড়ে দেয়া এবং তৃতীয় তাকবির দিয়ে উভয় হাত বেধেঁ নেয়া।
– আউজুবিল্লাহ-বিসমিল্লাহ পড়া
– সুরা ফাতেহা পড়া
– সুরা মিলানো। অতপর নিয়মিত নামাজের মতো রুকু ও সেজদার মাধ্যমে প্রথম রাকাআত শেষ করা।

 

ঈদের নামাজের দ্বিতীয় রাকাআত

– বিসমিল্লাহ পড়া
– সুরা ফাতেহা পড়া
– সুরা মিলানো।
– সুরা মিলানোর পর অতিরিক্ত ৩ তাকবির দেয়া। প্রথম রাকাআতের মতো দুই তাকবিরে উভয় হাত কাধ বরাবর উঠিয়ে ছেড়ে দেয়া অতপর তৃতীয় তাকবির দিয়ে হাত বাঁধা।
– তারপর রুকুর তাকবির দিয়ে রুকুতে যাওয়া।
– সেজদা আদায় করে তাশাহহুদ, দরূদ, দোয়া মাসুরা পড়ে সালাম ফেরানোর মাধ্যমে নামাজ সম্পন্ন করা।

 

ঈদের নামাজের খুতবা

ঈদের নামাজ পড়ার পর ইমাম খুতবা দেবে আর মুসল্লিরা খুতবা মনোযোগের সঙ্গে শুনবে। অবশ্য অনেকেই খুতবা না দেয়ার ব্যাপারে শিথিলতার কথা বলেছেন। খুতবা না দিলেও ঈদের নামাজ আদায় হয়ে যাবে বলে মত দিয়েছেন।

উল্লেখ্য, অতিরিক্ত তাকবিরের ক্ষেত্রে অন্যান্য মাজহাবসহ অনেকেই প্রথম রাকাআতে তাকবিরে তাহরিমাসহ ৭ তাকবির আর দ্বিতীয় রাকাআতে ৫ তাকবিরে দিয়ে থাকেন। এতে কোনো অসুবিধা নেই।

আল্লাহ তাআলা মুসলিম উম্মাহকে যথাযথ নিয়মে ঈদের নামাজ আদায় করার তাওফিক দান করুন। ঈদের নামাজ আদায়ে যথাযথ নিরাপত্তা বজায় রেখে সুস্থ থাকার তাওফিক দান করুন। আমিন।

 

 

এবার কি ঈদের সালাত ঘরে আদায় করা যাবে?

 

উত্তর দিচ্ছেনঃ ডঃ আবুল কালাম আজাদ
মুদীর, ইউরোপিয়ান জামেয়া ইসলামিয়া, লন্ডন

ঘরে ঈদের সালাত আদায় করা যাবে কি না, এই বিষয়টা নতুন নয়। সাহাবাদের যুগেও এই বিষয়টার আমল খুজে পাওয়া যায়।
সহীহ রেওয়ায়েতে প্রমাণিত হয়েছে যে আনাস (রাঃ) ঈদের সালাত জামায়াতে না পাওয়ার পর তিনি ঘরে এসে পরিবারের সবাইকে নিয়ে -এমনকি দাস-দাসীদেরকে একত্রিত করে তাকবীর ঈদের জামায়াত করতেন। তবে, সেখানে তিনি ঈদের খুতবা দিতেন না। কোন এক সময়ে আনাস (রা) এর দাস আব্দুল্লাহ বিন আবি উতবাহ দুই রাকায়াত ঈদের সালাতের ইমামতি করেছেন। (দেখুনঃ এরওয়াউল গালীল, আলবানী ৩/১২০), বুখারী হাদীস নং ৯৮৭ এর আগে, মুসান্নাফ ইবনে আবি শায়বা (হাদীস নং ৫৮০৩), সুনানে বায়হাকী (৬২৩৭)।
এই হাদীস বা সাহাবার আমলের ওপর ভিত্তি করে মালেকী, শাফেয়ী ও হাম্বলী মাজহাবে ঘরে ঈদের সালাত আদায় করা যাবে বলে মতামত দেওয়া হয়েছে। (দেখুনঃ মুখতাসারুল ঊম্ম- মুযানী ৮/১২৫, শারহুল খারশী ২/১০৪)।
হানাফী মাজহাবে বলা হয়েছে যে যদি ইমামের সাথে ঈদের সালাত না আদায় করতে পারে তাহলে আলাদা বা একা তা আর আদায় করা যাবে না। (দেখুন আদ-দুররুল মোখতার ২/১৭৫)। এর পক্ষে হাদীসের কোন প্রমাণ না পাওয়া গেলেও যুক্তি হলো- ঈদ হলো ব্যাপক গোষ্ঠীয় ইবাদত, পারিবারিক নয়। ফলে, ঘরে তা আদায় করা যাবে না। ইমাম ইবনে তাইমিয়া (রঃ) ও ইবনে উসাইমিন হানাফীদের মতের পক্ষে মত দিয়েছেন। (দেখুনঃ আশশারহুল মুমতি৫/১৫৬)।

সাউদী স্থায়ী ফতোয়া কমিটির ফতোয়া (৮/৩০৬) বলেছেন যে যদি কেউ ঈদের সালাতের জামায়াত না পায়, তিনি ঘরে বা অন্য কোথাও আবার আলাদা জামায়াত করতে পারবেন ঈদের অতিরিক্ত তাকবীর সহ।
কিন্তু এখানে সালাতের পর ঈদের খুতবা দিবেন না। এই সালাতের জন্যে ইক্বামত দিতে হবে না এবং ক্বেরাত জোরে পড়বেন। ঈদের দিনে ঘরে ঈদের সালাত করলে আগে ঈদের সালাত পড়বেন এবং এরপর এশরাকের সালাত পড়বেন। কারণ ঈদের দিনে রাসূলুল্লাহ (সাল্লাল্লাহু আলায়হি ওসাল্লাম) ঐ দিনের সালাত শুরু করতেন ঈদের সালাত দিয়ে, এশরাকের সালাত নয়।
মিশরের গ্রান্ড মুফতিও ফতোয়া দিয়েছেন যে এই বছরের কোভিট-১৯ এর কারণে পরিবারের সদস্যরা নিজেরা ঘরেই ঈদের সালাতের জামায়াত করতে পারবেন। কারণ এর পক্ষে সাহাবীদের আমল পাওয়া যায়।
(দেখুনঃ https://www.albayan.ae/editors-choice/varity/2020-05-15-1.3859100 )
আমরা তাহলে কোনটা আমল করব?
এখানে আপনাদের কাছে ভিন্নভিন্ন মত উপস্থাপন করা হলো। আপনারাই সিদ্ধান্ত নিবেন কোনটা আমল করবেন।
তবে, যেহেতু আনাস (রাঃ) নিজেই বাসায় পরিবারের লোকদেরকে নিয়ে ঈদের সালাত করেছেন বলে সহীহ হাদীসে প্রমাণ পাওয়া যায়, তাই আমরাও সে অনুযায়ী আমল করতে পারি। (আমি এই মতকে বেশী শক্তিশালী মনে করি এবং আমি এবার এই মতের ওপর আমল করব বলে নিয়ত করেছি।)
আল্লাহ আমাদের সবাইকে কবুল করুন। আমীন।

ঈদের নামাজ ঘরে পড়া নিয়ে যা বললেন আজহারী (ভিডিওসহ

ফেসবুক লাইভে বক্তব্য রাখছেন মাওলানা মিজানুর রহমান আজহারী।
ফেসবুক লাইভে বক্তব্য রাখছেন মাওলানা মিজানুর রহমান আজহারী। ছবি: সংগৃহীত

ঈদের নামাজ ঈদগাহ ছাড়া জায়েজ হয় কিনা এ বিষয়ে বিভিন্ন মাজহাবের ইমামের মতপার্থক্যগুলো আলোচনা করেছেন এই সময়ের অন্যতম জনপ্রিয় আলেম মাওলানা মিজানুর রহমান আজহারী।

বাংলাদেশ সময় বৃহস্পতিবার দিবাগত রাত পৌনে ১০টায় মালয়েশিয়া থেকে ফেসবুক লাইভে মাহে রমজান, যাকাতের গুরুত্ব ও ঈদের জামায়াত নিয়ে এক ঘণ্টারও বেশি সময় আলোচনা করেন তিনি।

ইতিমধ্যে তার ওই ফেসবুক লাইভ ইতিমধ্যে সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়ে গিয়েছে।

বক্তব্যটি মিজানুর রহমান আজহারীর অফিসিয়াল ফেসবুক পেজে লাইভ সম্প্রচারিত হয়। সম্প্রচারের প্রথম তিন ঘণ্টাতেইপ্রথম তিন ঘণ্টায় প্রায় ১ মিলিয়ন (১০ লাখ) দর্শক দেখেছেন। আর ওই সময়ের মধ্যে ১ লাখ ৮০ হাজারেরও বেশি মানুষ তার এ বক্তব্যে লাইক ও কমেন্ট করেছেন। মধ্যে ৩৮ হাজার দর্শক বক্তব্যটি নিজেদের টাইমলাইনে শেয়ার করেছেন।

শুক্রবার সন্ধ্যা ৭টার দিকে এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত মোট ১৩ লাখেরও বেশি দর্শক ওই ভিডিওটি দেখেছেন। শেয়ার করেছেন ৪৩ হাজার ভার্চুয়ালবাসী। দুই লক্ষাধিক মানুষ লাইক ও কমেন্ট করেছেন।

প্রতি মুহূর্তে বাড়ছে লাইক, কমেন্ট ও শেয়ারের সংখ্যা।

বর্তমান সময়ের আলোচিত ইসলামী বক্তা মাওলানা মিজানুর রহমান আজহারী তার বক্তব্যে বলেন, যেহেতু করোনা পরিস্থিতির কারণে এখন গোটা বিশ্ব লকডাউন চলছে। ক্রাইসিস মুমেন্ট (সংকটময় মুহূর্ত)। গোটা বিশ্ববাসী এখন আতংকিত। গোটা বিশ্বের মানুষ এখন খুব বিপদের মধ্যে আছে। ফলে আমাদের মসজিদগুলো এখন বন্ধ। নামাজগুলো আমাদের ঘরে পড়তে হচ্ছে। এমনকি জুমার সালাতও মসজিদে আদায় করতে পারছি না। জুমার সালাতের পরিবর্তে জোহরের সালাত আদায় করতে হচ্ছে। এই পরিস্থিতিতে আর দুই দিন পরেই আমরা ঈদুল ফিতর উদযাপন করতে যাচ্ছি।

বক্তব্যে মিজানুর রহমান আজহারী বলেন, বিগত যেকোনো বছরের ঈদের তুলনায় এই বছরের ঈদটি সম্পূর্ণ ব্যতিক্রম। কেননা এই মহামারীকালীন ঈদের সালাত জামায়াতে আদায় করা সম্ভব নাও হতে পারে।

ভিডিওতে করোনা পরিস্থিতিতে সংক্রমণ ঠেকাতে ও সুস্থতা বজায় রাখতে তিনি ঈদের সালাত একা বা ঘরে আদায় কিংবা সর্বোচ্চ কয়েকজন মিলে ঈদের জামায়াত পড়ার পরামর্শ দেন তিনি।

মিজানুর রহমান আজহারী বলেন, ঈদের নামাজে আজান ও ইকামাত দেয়ার প্রয়োজন নেই। ঈদের নামাজে অতিরিক্ত কিছু তাকবির দিতে হয়। অতিরিক্ত তাকবিরের বর্ণনা দিয়ে আজহারী বলেন, মাজহাব ভেদে তাকবিরের সংখ্যার পার্থক্য রয়েছে। হানাফি মাজহাবে ছয়টি অতিরিক্ত তাকবির দেয়া হয়ে থাকে। প্রথম রাকআতে তিনটি দ্বিতীয় রাকাআতে তিনটি।

শাফিঈ মাজহাবে ১২টি অতিরিক্ত তাকবির দিতে হয়। সেক্ষেত্রে প্রথম রাকআতে সাতটি ও দ্বিতীয় রাকআতে পাঁচটি। হাম্বলি আর মালিকি মাজহাবে ১১টি অতিরিক্ত তাকবির দেয়া হয়ে থাকে। প্রথম রাকাআতে ছয়টি আর দ্বিতীয় রাকাআতে পাঁচটি।

তবে বাংলা ভাষাভাষীরা মূলত হানাফি মাজহাবের অনুসারী হয়ে থাকে। সেক্ষেত্রে তিনি ছয় তাকবিরই পড়ার পরামর্শ দেন।

 

ঈদের নামাজ ঘরে পড়ার নিয়ম

মিজানুর রহমান আজহারী বলেন, নামাজে দাঁড়িয়ে তাকবিরে তাহরীমা অর্থাৎ ‘আল্লাহু আকবার’ বলে সানা পড়তে হবে। তারপর কেরাত পড়ার আগে অতিরিক্ত তিনটি তাকবির দিতে হবে অর্থাৎ ‘আল্লাহু আকবর’ তিনবার বলতে হবে। এরপর সূরা ফাতিহার সঙ্গে অন্য একটি সূরা এবং অন্য সকল নামাজের ন্যায় রুকু ও সিজদাহ করতে হবে।

এবার দ্বিতীয় রাকাআতের জন্য দাঁড়িয়ে প্রথমে কেরআন পড়তে হবে অর্থাৎ সূরা ফাতিহা ও সঙ্গে অন্য একটা সূরা পড়তে হবে। এরপর রুকুতে যাওয়ার আগে তিনটি তাকবির অর্থাৎ ‘আল্লাহু আকবার’ তিনবার বলতে হবে এবং চতুর্থ তাকবির দিয়ে তারপর রুকুতে যেতে হবে। এখানে তিনটি অতিরিক্ত তাকবির ও চতুর্থটি নামাজের স্বাভাবিক তাকবির। এভাবে ছয়টি অতিরিক্ত তাকবির দেয়ার মধ্য দিয়ে খুব সহজেই ঈদের নামাজ আদায় করা যেতে পারে।তবে ঈদের সালাত ঘরে আদায়ের ক্ষেত্রে খুতবার প্রসঙ্গটি বাদ যাবে। কেননা খুতবা সবার উদ্দেশে ইমাম সাহেব দিয়ে থাকেন।

 

সবাইকে বেশি বেশি দোয়া পড়ার আহ্বান

 

সবশেষে তিনি ঘূর্ণিঝড় আম্পানে ক্ষতিগ্রস্ত মানুষদের জন্য সহানুভূতি জানান ও তাদের জন্য বিশেষ দোয়া করেন। আর করোনাভাইরাস মহামারীতে সবাইকে সতর্ক থাকার আহ্বান জানান। আর এই মহামারী থেকে পরিত্রাণের জন্য আল্লাহর কাছে সবাইকে বেশি বেশি দোয়া করার আহ্বান জানান।

 

আইডিসির সাথে যোগ দিয়ে উভয় জাহানের জন্য ভালো কিছু করুন

 

আইডিসি এবং আইডিসি ফাউন্ডেশনের ব্যপারে বিস্তারিত জানতে  এই লিংক দুটি ( লিংক০১লিংক০২ ) ভিজিট করুন।

আইডিসি  মাদরাসার ব্যপারে বিস্তারিত জানতে এখানে ক্লিক করুন। 

আপনি আইডিসি  মাদরাসার একজন স্থায়ী সদস্য /পার্টনার হতে চাইলে এই লিংক দেখুন.

আইডিসি এতীমখানা ও গোরাবা ফান্ডে দান করে  দুনিয়া এবং আখিরাতে সফলতা অর্জন করুন।

কুরআন হাদিসের আলোকে বিভিন্ন কঠিন রোগের চিকিৎসা করাতেআইডিসি ‘র সাথে যোগাযোগ করুন।

ইসলামিক বিষয়ে জানতে এবং জানাতে এই গ্রুপে জয়েন করুন।