একদা ভারতবর্ষে একজন আলিম কুরআনের আয়াত দিয়ে রুকইয়াহ করতেন। মানুষ তাঁর কাছে বিভিন্ন রোগ নিয়ে আসত, আর তিনি কুরআনের বিভিন্ন আয়াত দিয়ে তাদের চিকিৎসা করতেন। এরপর একসময় ভারতবর্ষে ব্রিটিশরা এলো। তারা নিয়ে এলো আধুনিক চিকিৎসাশাস্ত্র, এতে অনেকেই কুরআনিক চিকিৎসা বাদ দিয়ে সেদিকে ঝুঁকে পড়ল। ঐ সময়ে সেই আলিমের প্রতিবেশি একজন ডাক্তার ছিলেন, যখন তিনি তার রোগীকে কোনো ওষুধ প্রেস্ক্রাইভ করতেন, রোগী বলত ‘ডাক্তার সাহেব, আমি অমুক আলিমের কথামত এই রোগের জন্য অমুক অমুক সূরাহও তিলাওয়াত করি’। বারবার এসব শুনতে শুনতে হতাশ ডাক্তার একদিন সেই আলিমের সাথে দেখা করতে গেল।
“শাইখ! আমাদের কাছে এখন আধুনিক চিকিৎসা আছে, সত্যিকারের ওষুধ আছে। কেবল বিশ্বাসের উপর ভিত্তি করে এসব কুরআনের চিকিৎসার উপর আমাদের আর নির্ভর করার দরকার নেই। এটা শুধুই কিছু কুসংস্কার।” শাইখ জবাব দিলেন, “আমি আধুনিক চিকিৎসা এবং রুকইয়াহ–দুটোকেই সমর্থন করি। আর আল্লাহ তো কুরআনকে মানুষের জন্য শিফা বলেছেন।” “কিন্তু শাইখ, এটা তো স্রেফ কিছু শব্দ, এগুলো আওড়ালেই রোগ ভালো হয়ে যাবে এটা কেমন কথা। রোগ-বালাই শারীরিক সমস্যা, এর জন্য ডাক্তারি চিকিৎসা দরকার।” এবার শাইখ হেলান দিয়ে বসলেন আর বললেন, “যদি এটাই তোমার বিশ্বাস হয় যে কুরআন কেবল কিছু শব্দমালা, তাহলে তোমার ঈমান থাকবে না। তুমি তো অজ্ঞ, দেখতেও কুৎসিত, তার মানে তোমার বাবা-মা ও নিশ্চয় দেখতে কুৎসিত হবেন।” “কী! কী বললেন আপনি! এ কেমন আচরণ?” ডাক্তারকে রেগে যেতে দেখে এবার আলিম দ্রুত ডাক্তারের পালস ধরে বললেন, “বাহ! তোমার হার্টবিট বেড়ে গেছে, চেহারা লাল হয়ে গেছে, শরীরের তাপমাত্রাও বেড়ে গেছে। আমার মুখ থেকে কিছু শব্দ শুনে মুহূর্তেই তোমার শরীরের এই পরিবর্তন ঘটে গেছে। কিছু অর্থপূর্ণ শব্দ একজন ডাক্তারকেও পাল্টে দিতে পারে মুহূর্তেই। আর আল্লাহ তো আমাদের স্রষ্টা, এসব শব্দ, অর্থ, কারণ, প্রভাব এসবকিছুই আমাদের শরীরের জন্যও চিকিৎসা। সামান্য মানুষের কথা যদি আমাদের শরীরে প্রভাব ফেলে, তাহলে মহান রবের আসমানি কিতাব তা আমাদের শরীরে কতটা প্রভাব বিস্তার করার ক্ষমতা রাখে!! আল্লাহ বলেছেন, “আমি কুরআনে এমন বিষয় নাযিল করি যা রোগের সুচিকিৎসা এবং মুমিনের জন্য রহমত।” (সূরাহ বনি ইসরাইল ১৭: ৮২) তবে আমরা আধুনিক চিকিৎসাকেও উৎসাহিত করি, এটাকে বাদ দিতে বলি না।”

আইডিসির সাথে যোগ দিয়ে উভয় জাহানের জন্য ভালো কিছু করুন!

আইডিসি এবং আইডিসি ফাউন্ডেশনের ব্যপারে  জানতে  লিংক০১ ও লিংক০২ ভিজিট করুন।

আইডিসি  মাদরাসার ব্যপারে বিস্তারিত জানতে এখানে ক্লিক করুন। 

আপনি আইডিসি  মাদরাসার একজন স্থায়ী সদস্য /পার্টনার হতে চাইলে এই লিংক দেখুন.

আইডিসি এতীমখানা ও গোরাবা ফান্ডে দান করে  দুনিয়া এবং আখিরাতে সফলতা অর্জন করুন।

কুরআন হাদিসের আলোকে বিভিন্ন কঠিন রোগের চিকিৎসা করাতেআইডিসি ‘র সাথে যোগাযোগ করুন।

ইসলামিক বিষয়ে জানতে এবং জানাতে এই গ্রুপে জয়েন করুন।